‘মিস ইংল্যান্ড ২০১৯ হলেন বাঙালি তরুণী!

ইংল্যান্ডের সবচেয়ে সুন্দরী তরুণী হিসেবে স্বীকৃতি পেলেন একজন বাঙালি নারী। সম্প্রতি ‘মিস ইংল্যান্ড ২০১৯’ শিরোপা লাভ করেছেন ভারতীয় বংশোদ্ভূত ভাষা মুখোপাধ্যায় (২৩)। সুন্দরীরা নাকি মেধাবী হয় না – এই প্রপাগাণ্ডার মুখে ছাই দিয়েছেন এই তরুণী চিকিৎসক। ভারতে জন্মগ্রহণ করলেও নয় বছর বয়সে ভাষা মুখোপাধ্যায় পরিবারের সাথে চলে যান যুক্তরাজ্যে। সেখানেই স্থায়ীভাবে বসবাস করেন তারা। অত্যন্ত মেধাবী এই তরুণী চিকিৎসক ৫টি ভাষায় অনর্গল কথা বলতে পারেন। তার আইকিউ লেভেল ১৪৬। তাই প্রাতিষ্ঠানিকভাবেই তিনি ‘জিনিয়াস’ উপাধি পেয়েছেন।

বৃহস্পতিবার (০১ আগস্ট) সন্ধ্যায় মিস ইংল্যান্ড-এর চূড়ান্ত পর্ব শেষ হয়। এর কয়েক ঘণ্টা পরই বোস্টনে একটি হাসপাতালে জুনিয়র ডাক্তার হিসেবে চাকরি শুরু করেছেন ভাষা। ভাষা মুখার্জি নটিংহাম বিশ্ববিদ্যালয় থেকে দুটি বিষয়ে স্নাতক সম্পন্ন করেছেন; একটি হলো চিকিৎসা বিজ্ঞান, আর অপরটি মেডিসিন ও সার্জারি। চিকিৎসা বিজ্ঞানে পড়ার সময়েই তিনি তার মডেলিং ক্যারিয়ার শুরু করেন। চিকিৎসা বিজ্ঞানে স্নাতক সম্পন্ন করেছেন ভাষা মুখার্জি মিস ইংল্যান্ড প্রতিযোগিতায় অংশ নিয়ে ভাষা তার অনুভূতি প্রকাশ করে বলেন, ‘অনেকে মনে করেন, সুন্দরী প্রতিযোগিতায় যারা আসেন, তারা নির্বোধ-বোকাসোকা হন। কিন্তু সেটা যে সঠিক নয়, আমরা তা প্রমাণ করেছি।

মন্ত্রীসহ এফডিসি ও রাজপথ ঝাড়ু দিলেন শিল্পীরা ডেঙ্গু বিস্তার রোধে নানামুখী পদক্ষেপ ও কর্মসূচি গ্রহণ করেছেন সরকারি-বেসরকারি বিভিন্ন প্রতিষ্ঠান। তারই ধারাবাহিকতায় এই সমস্যার প্রতিরোধে সবাইকে ঐক্যবদ্ধ করতে মাঠে নেমেছেন চলচ্চিত্র তারকারা। হ্যাঁ, শুক্রবার (২ আগস্ট) বাংলাদেশ চলচ্চিত্র উন্নয়ন করপোরেশনে (বিএফডিসি) চলচ্চিত্রশিল্পী, প্রযোজক, পরিচালকদের নিয়ে পরিচ্ছন্নতা ও মশা নিধন অভিযান উদ্বোধন করেন তথ্যমন্ত্রী হাছান মাহমুদ। এরপর তথ্য মন্ত্রণালয়ের উদ্যোগে র‌্যালি বের করা হয়। এতে অংশ নেন তথ্যমন্ত্রী হাসান মাহমুদ ছাড়াও তথ্য সচিব আবদুল মালেক, চলচ্চিত্র প্রযোজক, চলচ্চিত্র পরিচালক, শিল্পী, কলাকুশলীসহ বিএফডিসির কর্মকর্তা-কর্মচারীরা।এডিস মশা ধ্বংসের লক্ষে জনসাধারণকে সচেতন করতে এই র‌্যালি বিএফডিসি থেকে বের হয়ে এর আশে-পাশের কয়েকটি রাস্তায় প্রদক্ষিণ করে। এ সময় তথ্যমন্ত্রী হাসান মাহমুদ ও শিল্পীরা ঝাড়ু হাতে নিয়ে এফডিসি ও এর আশে-পাশের এলাকা পরিষ্কার করেন। এছাড়া মশা মারার ফগিং মেশিন দিয়ে মশা মারেন তারা। সুত্রঃ বাংলাদেশ সময়

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *