‘ও আমাকে বাঁচতে দেবে না, আমাকে আ’ত্মহ’ত্যা’ই করতে হবে’, দিশাহারা ভোজপুরি বং-বম্ব রানি !

এবার নিজেরই সোশ্যাল মি’ডিয়া পেজে আ’ত্মহ’ত্যার আগাম আভাস দিলেন নায়িকা। ভোজপুরি ছবির জনপ্রিয় নায়িকা রানি চট্টোপাধ্যায় জানালেন তিনি আর সোশ্যাল মি’ডিয়ায় কটাক্ষ স’হ্য করতে পারছেন না।

দিশাহারা ভোজপুরি বং-বম্ব রানি!এই সময় ডিজিটাল ডেস্ক: ভোজপুরি ছবির জনপ্রিয় নায়িকা রানি চট্টোপাধ্যায়। অংশ নিয়েছিলেন সিজন ১০-এও। সম্প্রতি রানি এক দীর্ঘ ইনস্টাগ্রাম পোস্টে জানালেন ধনঞ্জয় সিং নামে এক ব্যক্তি গত কয়েক বছর ধরে তাঁকে সোশ্যাল মি’ডিয়ায় সমানে বি’রক্ত করে যাচ্ছেন,

যার ফলে তাঁর ব্যক্তিগত জীবনে খুবই স’ম’স্যা হচ্ছে।রানি তাঁর দীর্ঘ পোস্টে জানিয়েছেন এই বিষয়ে তিনি পুলিশের সাইবার সেলের কাছেও গিয়েছিলেন সাহায্য চাইতে, কিন্তু সেখানকার আধিকারিকরা তাঁর অ’ভিযো’গ নিতে অ’স্বীকার করেন। তাঁদের ব’ক্তব্য,

ফেসবুকে ধনঞ্জয় যে সব পোস্ট করেছেন, তার কোনওটাতেই রানির নাম নেই। তবে রানি চট্টোপাধ্যায়ের দা’বি, ধনঞ্জয় নামের ওই ব্যক্তি সো’শ্যাল মি’ডিয়ায় তাঁর চেহারা নিয়ে কটূক্তি করেন, তাঁকে বয়স্ক প্রমাণ করার চেষ্টা করেন এবং জনসমক্ষে তাঁকে গালিগালাজও করেন।

রানি জানিয়েছেন, তাঁর বন্ধুবান্ধব ও সহকর্মীরা ওই ব্যক্তির কাজকর্ম এবং কথাকে পাত্তা না দেওয়ার পরামর্শ দিয়েছেন, কিন্তু এভাবে সোশ্যাল মিডিয়ায় তাঁর বি’রুদ্ধে করা পোস্টকে নজরআন্দজ করে বেঁচে থাকা তাঁর পক্ষে সম্ভব নয়। মানসিকভাবে ভে’ঙে পড়া রানি জানান,

এভাবে চললে তাঁকে ভবিষ্যতে হয়তো আ’ত্মহ’ত্যার পথই বেছে নিতে হবে। এমন কোনও পরিস্থিতি তৈরি হলে তার জন্যে দায়ী থাকবেন ধনঞ্জয় নামক ব্যক্তিই।রানি এই বিষয়ে মুম্বই পুলিশেরও সাহায্য চেয়েছেন। তিনি বলেন, পোস্টে কোথাও তাঁর নামের উল্লেখ না থাকলেও,

তিনি নিশ্চিত প্রতিটি কটূক্তি তাঁকে লক্ষ্য করেই করা।ইনস্টাগ্রাম পোস্টে রানি লিখেছেন, ‘আমি মুম্বই পুলিশকে অনুরোধ করব আমি যদি আ’ত্মহ’ত্যার পথ বেছে নিই, তাহলে যেন আমার মৃ’ত্যুর জন্যে ধনঞ্জয়কেই দায়ী ধরা হয়। আমার বেঁচে থাকার আর কোনও শ’ক্তি নেই।

আমার কাছে আ’ত্মহ’ত্যাই একমাত্র রাস্তা, এতবছর ধরে অবসাদের সঙ্গে লড়াই চালানোর পর। আমি আর সহ্য করতে পারছি না।’ এখানেই শেষ নয়। সো’শ্যাল মি’ডিয়ায় অ’ভিযুক্ত ব্যক্তি বেশ কিছু ছবিও শেয়ার করেছেন রানি চট্টোপাধ্যায়।

اترك تعليقاً

لن يتم نشر عنوان بريدك الإلكتروني. الحقول الإلزامية مشار إليها بـ *